জামায়াতের সাথে নামায আদায়ের গুরুত্ব

আসসালামু আলাইকুম, পাঠক বন্ধুরা আশাকরি সকালে ভালো আছেন। আমি সোহাগ Sohag247.com এর পক্ষ থেকে আজকের পর্বে আপনাদের সবাইকে জানাই স্বাগতম।
ইসলামের জামায়াতের সাথে নামায আদায় করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।জামায়াতের সাথে নামায আদায় রয়েছে প্রচুর কল্যাণ। হযরত নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম অন্ধ ব্যক্তিকে পর্যন্ত জামাত তরক করার অনুমতি দেননি বরং যারা জামাতের সাথে নামায আদায় করে না তাদেরকে জ্বালিয়ে দেওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন।

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু তা'আলা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন হযরত নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন "জামাতের সাথে নামাজ আদায় করা একা নামাজ আদায় করার চেয়ে সাতাশ গুণ ফজিলতপূর্ণ" (বুখারী)

মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে বর্ণনা করেন "তোমরা রুকুকারীদের সাথে রুকু করো।" মুসল্লিদের সাথে জামাতে নামাজ আদায় করার ব্যাপারে মহান আল্লাহ উক্ত আয়াত দ্বারা মানবজাতিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

সাহাবা, তাবেয়ীন এবং ফিকহ বিদদের একদল জামাতে নামাজ পড়া কে ওয়াজিব এবং তা পরিত্যাগ করাকে গুরুতর পাপ বলে অভিহিত করেছেন।

কারো কারো মতে জামাতে নামাজ আদায় করা ফরজ এবং শরীয়ত সম্মত কোন কারণ ছাড়া একা একা নামাজ আদায় করলে নামাজ শুদ্ধ হবে না।

তবে অধিকাংশ সাহাবা-তাবেয়ীন ও ফিকহবিদদের মতে জামাতে নামাজ পড়া সুন্নাতে মুয়াক্কাদা।

হযরত রাসূল সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন যে বস্তি বা ময়দানে তিনজন মুসলমান থাকবে আর সেখানে যদি জামাতে নামাজ আদায় করা না হয়, তাহলে শয়তান তাদের উপর প্রভাব বিস্তার করে ফেলবে। কাজেই তোমরা জামাতকে আকড়ে ধরো। কারণ, দলতত্যাগকারী বকরীকেই বাঘ খেয়ে থাকে। (আহমদ)

নিয়মিত প্রযুক্তি বিষয়ক সকল তথ্য পেতে আমাদের সাথে যুক্ত থাকতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন এবং আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন ও টুইটারে আমাদের ফলো করুন। আপনার আইডিয়া আমাদের জানতে matubbermdkawsar@gmail.com ঠিকানায় মেইল করুন।

Post a Comment

0 Comments